পেটে মেদ বাড়ার ৫টি প্রধান কারণ

কর্তৃক নাহিদ পারভীন
0 মন্তব্য 1417 ভিউজ

পেটে মেদ জমা বা ভুঁড়িওয়ালা মানুষ নিজেকে খুব অসহায় ভেবে থাকে। কারন এই ভুঁড়ির জন্য অনেক মানুষ তাকে অপছন্দ করে। চলতে ফিরতে পহাতে হয় নানা রকম সমস্যা। মানব দেহে সব থেকে তাড়াতাড়ি মেদ জমে পেটে। পেটের বিভিন্ন অঙ্গের চারপাশে এই ‘ফ্যাট’ জমে এবং যার থেকে সৃষ্টি হয় নানা রোগের। বিশেষ করে হার্টের সমস্যা, ডায়াবেটিস, রক্তচাপের মতো অসুখের সূত্র পেটের এই মেদ জমার কারন থেকেই। যাকে সাধারণ ভাবে বলা হয় ‘বেলি ফ্যাট’। শুধুমাত্র খাওয়াদাওয়াই নয়, বেলি ফ্যাট হতে পারে আরও নানা কারণে। অনেক ভুঁড়িওয়ালা মানুষ খাবার ছেড়ে দিয়েও নিজের ভুঁড়ি কমাতে পারছে না। প্রয়োজন নিয়ম মেনে চলাফেরা করা। চলুন দেখে নেই পেটে মেদ বাড়ার ৫টি প্রধান কারণ যা নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারলে আপনি খুব সহজেই নিজের ভুঁড়ি কমাতে পারবেন।

১। সারা দিনে ঘুরতে ফিরতে বা বিভিন্ন কাজের ফাঁকে কিছু-না-কিছু খাওয়া হয়ে থাকে। ফাস্ট ফুড খাবার মুখরোচক হলেও স্বাস্থ্যের জন্য একেবারেই ঠিক নয়। এর পরিবর্তে যদি বিভিন্ন ফল বা স্যালাড খাওয়া যায়, তাতে অনেক উপকার আসে। এছাড়া তৃষ্ণা পেলে অনেকেই বিভিন্ন সফট ড্রিঙ্কস পান করে থাকেন। এসকল সফট ড্রিঙ্কসে অত্যাধিক পরিমাণে ক্যালোরি রয়েছে যা শরীরে মেদ বাড়িয়ে দেয়।

২। অফিসে বা অন্য কোনও কাজ করার সময় এক ভাবে অনেকক্ষণ বসে থাকলেও বেলি ফ্যাট বেড়ে যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতি এক থেকে দেড় ঘণ্টা অন্তর নিজের সিট থেকে উঠে হাঁটাচলা করা উচিত।

৩। নিয়মিত দই খাওয়ার অভ্যাস করুন। কারণ এতে যে ‘গুড ব্যাক্টেরিয়া’ থাকে, তা হজমে সাহায্য করে। ফলে পেটে মেদ বাডা়র সুযোগ হয় না।

৪। রোগা হতে গিয়ে অনেকেই খাওয়া-দাওয়া কমিয়ে দেয়। চিকিৎসকদের মতে, খাবারের পরিমাণ কমালে সমস্যা নেই। কিন্তু, বেশি ক্ষণ না খেয়ে থাকলেও পেটে মেদ জমে।

৫। করনেল ইউনিভারসিটির বিশেষজ্ঞদের মতে, নেগেটিভ ইমোশন থাকলে বেশি খাওয়ার প্রবণতা হয়। যা শরীরে পক্ষে খুবই ক্ষতিকারক। আর এই অতিরিক্ত খাওয়ার প্রবণতা থেকে শরীরে বাড়তে পারে মেদ।

বিদ্রঃ অতিরিক্ত পরিমাণে মেদ জমে থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন। মনে রাখবেন, চিকিৎসকের পরামর্শ  ছাড়া কোন ধরনের ঔষধ সেবন করা ঠিক নয়।

0 মন্তব্য
0

তুমিও পছন্দ করতে পার

মতামত দিন