paypal-zoom-in-bangladesh
অনলাইন উপার্জন

ফ্রিল্যান্সারদের আগ্রহ নেই পেপালের জুম সেবায়

গত বছরের ১৯ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয় আর্ন্তজাতিক পেমেন্ট গেটওয়ে পেপালের জুম সেবা। লক্ষ্য ছিল, দেশি ফ্রিল্যান্সারদের বিদেশ থেকে অর্থ আনার পক্রিয়া সহজ করা। কিন্তু লেনদেনে পূর্ণাঙ্গ সেবা চালু না করায়, শুরু থেকেই এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আসছিলেন আউটসোর্সিংয়ের সঙ্গে জড়িতরা।

বিশ্বের ২০৩ দেশে পেপাল চালু থাকলেও পূর্ণাঙ্গ সেবা দেয়া হয় ২৯টি দেশে। বাংলাদেশসহ ১০৩ দেশে শুধু টাকা আনার সুবিধা আছে। সোনালী, রূপালী, অগ্রণীসহ নয়টি ব্যাংকে মিলছে এই সেবা। চালুর তিন মাস পরও পেপালের জুম সেবায় আগ্রহ নেই ফ্রিল্যান্সারদের। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রচারের অভাবেই ফ্রিল্যান্সারদের অংশগ্রহণ বাড়ছে না। লেনদেনে বিশেষ সুবিধা থাকায়, পেওনিয়র ও বিদেশি পেপাল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করছেন পেশাদার ফ্রিল্যান্সাররা।

এ পর্যন্ত পেপালের জুম সেবার মাধ্যমে এ পর্যন্ত সোনালি ব্যাংকে র‍্যামিটেন্স এসেছে ১০ কোটি টাকা। ব্যাংকটির কর্মকর্তারা বলছেন, রেমিট্যান্স আসার হার বাড়লেও ফ্রিল্যান্সারদের সংখ্যা খুব কম। দেশে ফ্রিল্যান্সারের সংখ্যা পাঁচ লাখের বেশি। প্রতিবছরই বাড়ছে এ সংখ্যা। বিশ্লেষকরা বলছেন, একটির ওপর নির্ভরশীল না হয়ে, বিকল্প আরো প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে হবে।

বিদ্রঃ পেপালের জুম সেবার মাধ্যমে উপার্জিত টাকা উত্তোলন করা যাবে। দেশের বাইরের কোন অনলাইন ওয়েব থেকে প্রোডাক্ট ক্রয় করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *